টাকায় আট মণ চাল

51

পরিতোষ সেন ১৯৩৭ সাল পর্যন্ত ঢাকায় ছিলেন। ‘জিন্দাবাহার’ বইয়ে তিনি সে সময়ের বাজারদর নিয়ে লিখেছেন, ‌‌

‘আজ থেকে পঞ্চাশ বছর আগে ঢাকায়, তথা পূর্ব–বঙ্গে থাবার–দাবারের স্বচ্ছলতা এবং অন্যান্য জিনিসের দাম অবিকল শেরশাহ–র যুগের মতো না–হ’লেও, এত সস্তা ছিল যে আজকের পাঠকেরা শুনে হয়তো তাই মনে করবেন। যেমনদু-আড়াই সেরি ইলিশ মাছ চার আনায়। এক-কুড়ি ডিম দু-আনায়। শীতকালে এক টাকায় কুড়ি দুই সের দুধ। ব্রহ্মদেশের সরু সেদ্ধ চাল তিন টাকায় এক মণ। এক ভরি সোনার দাম ষোলো টাকা। ছ’খানা ঘরের বারান্দা-উঠোনওয়ালা বাড়ির ভাড়া কুড়ি টাকা হ’লেও বেশি মনে হ’ত ।’

তবে সস্তার জন্য কিংবদন্তি হয়ে আছেন শায়েস্তা খাঁ। মুঘল আমলে বাংলার একজন বিখ্যাত সুবেদার বা প্রাদেশিক শাসক ছিলেন তিনি। দুই দফায় ২২ বছর তিনি বাংলা শাসন করেন। প্রথমে ১৬৬৪ থেকে ১৬৭৮ সাল এবং দ্বিতীয়বার ১৬৮০ থেকে ১৬৮৮ সাল। বলা হয়, তাঁর শাসনামলে ঢাকার ব্যাপক উন্নতি হয়। শায়েস্তা খাঁ এখনকার মানুষের কাছে বেশি বিখ্যাত আছেন একটি বিষয়ের জন্য—তাঁর শাসনামলে টাকায় আট মণ চাল পাওয়া যেত।

যখনই কোনো নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়, তখনই আমরা সেই শায়েস্তা খাঁর আমলের কথা বলে দীর্ঘশ্বাস ছাড়ি। পেঁয়াজের কেজি আড়াই শ টাকা, আর টাকায় কিনা আট মণ চাল! ভাবা যায়? এখন তো এক টাকারই অস্তিত্ব নেই বললে চলে। আসলেই কি শায়েস্তা খাঁর আমলে মানুষ এত সস্তায় চাল কিনতে পারত?

ঐতিহাসিকেরা অবশ্য বলছেন, বাংলার আরেক নবাব সুজাউদ্দীন খানের আমলেও (১৭২৭-৩৯) টাকায় আট মণ চাল পাওয়া যেত। তবে তাঁর কথা এখন আর কেউ বলেন না। ইতিহাস কাকে স্থান দেবে আর কাকে দেবে না, বোঝা মুশকিল।

১৯৬৪ সালের একটি পত্রিকার সংবাদএবার তাহলে ঐতিহাসিকদের কাছে যাই। তাঁরা দেখিয়েছেন, শায়েস্তা খাঁর আমলে ওই এক টাকা আয় করাই ছিল অত্যন্ত কঠিন। তখন বাংলার মানুষ ছিল অত্যন্ত গরিব। সে সময়ের অর্থনীতিকে বলা হতো খোরাকি অর্থনীতি। অর্থাৎ ফসল ভালো হলে সবাই দুই বেলা খেতে পারত, ফসল ভালো না হলে পরবর্তী ফসল না হওয়া পর্যন্ত প্রায় উপোস। আবার এমনও হয়েছে, কোনো কোনো সময়ে এত বেশি ফলন হতো যে চাহিদা কমে ধানের দামের ভয়াবহ পতন হতো। এতে কৃষকের কোনো লাভ হতো না, তখন টাকায় আট, এমনকি নয় মণ চালও পাওয়া যেত। এমনও হয়েছে, কৃষকেরা মাঠ থেকে ফসল তুলতেনই না। কারণ, ধান তোলার খরচই উঠত না। সুতরাং টাকায় আট মণ চাল পাওয়া যেত ঠিকই, কিন্তু সেটা প্রাচুর্যের লক্ষণ ছিল না। খুব কম মানুষেরই সে সময়ে এক টাকা থাকত।

স্বাধীনতার পর এই বাংলাদেশেই তো মাত্র ৪০ টাকায় পাওয়া যেত এক মণ চাল। আবার ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বাংলা শাসন আমলে টাকায় তিন মণ চাল পাওয়া যেত। সুতরাং এক টাকায় কত মণ চাল পাওয়া যেত, সেটা মোটেই সমৃদ্ধির লক্ষণ না, বরং মানুষের হাতে টাকা ছিল কি না, সেটাই আসল, অমর্ত্য সেন যাকে স্বত্বাধিকার বলছেন অনেক আগে থেকেই।

শায়েস্তা খাঁর আমলে টাকায় আট মণ চাল পাওয়ার কথা যেমন সত্যি, তেমনি সামান্য কিছু মানুষের হাতে টাকা ছিল, এটাও সত্যি। তবে মানুষ মনে রেখেছে প্রথমটাই। শায়েস্তা খাঁ নিজেও হয়তো জানতেন এমনটাই হবে। আর তাই ঢাকা ত্যাগ করার সময় তিনি নগরীর পশ্চিম তোরণে নিম্নলিখিত লিপিটি উৎকীর্ণ করিয়েছিলেন: ‘শস্যের এ ধরনের সস্তা বিক্রয়মূল্য প্রদর্শনকারীই একমাত্র এ তোরণ উন্মুক্ত করবে’।

সব মিলিয়ে বলা যায়, সস্তায় চাল পাওয়া নয়, এই বাংলায় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিই বরং সাধারণ ঘটনা। ইতিহাস বলে, ১৮৫৭ সালে সিপাহি বিদ্রোহের পর ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ব্রিটিশ রাজের কাছে ক্ষমতা দিয়ে চলে যায়। বাংলায় চালসহ প্রায় সব ধরনের পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এরপর থেকে নিয়মিত বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। রাধারমণ শীল সে সময়ের একজন কবি। দ্রব্যমূল্য নিয়ে তিনি একটি কবিতা লিখেছিলেন। কবিতাটা এ রকম—

‘আগে তেল আট সের টাকায় পেয়েছি

সে তেলে এখন হায় সে তেল এখন,

তিন সের টাকাতেও না হয় ঘটন।

পূর্ব্বাপর এক বেটে অল্পমূল্যে লুণ।

এখন লুণের দরে লেগেছে আগুন।

ভেতো বাঙালীর সার ভরসা তুণ্ডুল।

বিদেশে চালানো তাহা হয়েছে ভণ্ডুল।

আগেতে টাকায় ছিলো দুধ কুড়ি সের।

আটসের পাইনাকো-অদৃষ্টের ফের।

ঘৃত ছানা মাখন কি করিব আহার।

শাক-ভাত খেয়ে কাল কাটা হল ভার।

এদিকে ওদিকে দুদিকে মারা যাই

বাঙালীর ভাগ্যে সুখ বুঝি আর নাই।’

১৮৬০ সালে লেখা কবিতাটি তো এখনো দিব্যি চালিয়ে দেওয়া যায়।

তথ্য সূত্র: ঐতিহাসিকের নোটবুক, সিরাজুল ইসলাম। বাংলাপিডিয়া, এশিয়াটিক সোসাইটি এবং ঢাকার বাণিজ্যিক ইতিহাস, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি।

লেখাটি প্রথম আলোর ফিচার পাতা বাণিজ্যতে ছাপা হয়েছে গত ২ ডিসেম্বর। সেখানে একজন পাঠক একটি মন্তব্য করেছেন। তাঁর মন্তব্যটি এখানে রেখে দিলাম।

খোড়াকী অর্থনীতির ধারণাটা হচ্ছে ইংরেজদের দ্বারা প্রচলিত অর্থনৈতিক ধারণা। ইংরেজদের শোষণের ফলে যে দুর্ভিক্ষ তৈরী হয় তা থেকে দৃষ্টি অন্যদিকে ঘুড়ানোর জন্য এবং ইংরেজ শাসন যে কত ভালো তা বোঝানোর জন্য মূলত ইংরেজ পূর্ববর্তী শাসনামলকে ইংরেজরা “খোড়াকী অর্থনীতি” বলে থাকে। ইংরেজরা বলে থাকে যে ভারতবাসীদেরকে রেলগাড়ী, স্টীম গাড়ী, বৈদ্যুতিক আলো ইত্যাদি বিজ্ঞানের সব আধুনিকতার সাথে পরিচিত করিয়েছে ইংরেজরা। কিন্তু এসব আবিস্কৃত হয়েছি ইংরেজরা ভারত দখলেরও ৫০বছর পরে সুতরাং এসব জিনিস ইংরেজদের শাসনামলের আগে আসার কোন সুযোগ-ই ছিল না। এছাড়াও সেসময় ভারতবর্ষ জ্ঞান বিজ্ঞান এবং অর্থনৈতিকভাবে এতটাই উন্নত ছিল যে তাঁরা উপমহাদেশীয়দের আধুনিক সমরাস্ত্রের মুখোমুখি হওয়ার থেকে ষড়যন্ত্র করে জয়ী হওয়া বেশি পছন্দ করতো। ভারতবর্ষে ইংরেজদের প্রতিটি যুদ্ধ জয়ের পিছনে আছে ষড়যন্ত্র, মিথ্যা আশ্বাস, গাদ্দারী। বর্তমান গবেষনাতে উঠে এসেছে যে “খোড়াকী অর্থনীতি”র ধারণা ভুল বরং শায়েস্তা খাঁ-এর আমলে ১টাকাতে যে আট মন চাল পাওয়া যেত তা সত্যকারের অর্থে দ্রব্যমূল্যের “সস্তা”-ই কে বুঝায়। ইংরেজরা আসার আগে ভারতবর্ষের মানুষ কখনো দূর্ভিক্ষ কি জিনিস তা দেখে নাই।

ভালো লাগলে
[Total: 0   Average: 0/5]
শেয়ার করবেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published.